জ্বালানি নিরাপত্তা ২০৩০ : চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা

জ্বালানি নিরাপত্তা

২৯ জুলাই, ২০১৭ তারিখে ঢাকার লেকশোর হোটেলে  ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) “জ্বালানি নিরাপত্তা ২০৩০ :  চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা” নামক একটি সেমিনার আয়োজন করে ।

স্বাগত বক্তব্য দনে আবুল কাসেম খান, সভাপতি, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) । তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো _____

অনুষ্ঠানে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করনে ড. মোহাম্মাদ তামমি, প্রফসের, পট্রেোলয়িাম এবং খনিজ সম্পদ বভিাগ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় । তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো _______

অনুষ্ঠানে ড.এম ফজলুল কবরি খান, সাবকে সচবি, (পাওয়ার ডভিশিন, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, বাংলাদশে সরকার) পরচিালনায় অনুষ্ঠতি নির্ধারিত আলোচনায় নম্নিরে আলোচকগণ অংশ ননে

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন ট্রাইবুনালের চেয়ারম্যান ড. সেলিম মাহমুদ । তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো _________

পলসিি রচর্িাস ইনস্টটিউিট (পিআরআই) এর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মানসুর। তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো _________

এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার ম্যাগাজিন এর সম্পাদক মোল্লা এম আমজাদ হোসেন। তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো __________

রূপপুর নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট’র টেকনিক্যাল ডিরেক্টর ড. মুশফিকুর রহমান । তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো __________

ইসিপিভি চিটাগাং লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার রেজওয়ানুল কবির অংশগ্রহণ করেন। তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো __________

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মোঃ তাজুল ইসলাম। তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো ___________

এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি এবং খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, বীর বিক্রম । তাঁর বক্তব্য নচিে দওেয়া হলো _______

উৎসঃ   ওটিজিএল

Leave a Reply

*